কোমর ব্যথা কেন হয় ও এর থেকে মুক্তির উপায়

বর্তমান সময়ে কোমর ব্যথা হলো একটি সাধারণ সমস্যা যা জীবনের কোনো না কোনো সময় প্রায় সবাইকেই ভোগায়। এটি একটি অস্বস্তিকর এবং ব্যথার কারণ হতে পারে, যা আপনার দৈনন্দিন জীবনকে ব্যাহত করতে পারে।


আসসালামু আলাইকুম, আপনাকে স্বাগতম জানাচ্ছি সুবহানাল্লাহ হোমিও ক্লিনিকে! থাকছি আপনাদের সাথে সম্পূর্ণ বিষয়টি জুড়ে চলুন জানা যাক কোমর ব্যথা কেন হয়?

কোমর ব্যথা হওয়ার অনেকরকম কারণ রয়েছে। এটি শারীরিক পরিশ্রমের কারণে, আঘাতের কারণে, বা বয়সের কারণেও হতে পারে। এর মধ্যে অন্যতম ৭টি  কারণ আমি তুলে ধরলাম:

  1. মেরুদণ্ডের অস্থিসন্ধির প্রদাহ
  2. মেরুদণ্ডের ডিস্কে সমস্যা
  3. মেরুদণ্ডের স্নায়ুতে চাপ
  4. পেশীর টান
  5. অস্টিওপোরোসিস
  6. ভারসাম্যহীনতা
  7. ওজন বেশি হওয়া

বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এই কারণগুলোর জন্য কোমর ব্যথা হয়ে থাকে। কোমর ব্যথার কিছু সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে: কোমরে বা নিতম্বের ব্যথা করা, পায়ে ব্যথা করা ও শক্ত হয়ে যাওয়া,অস্থিরতা, দুর্বলতা,অসাড়তা ইত্যাদি। 

যদি আপনি কোমর ব্যথায় ভোগেন, তাহলে একজন ডাক্তারের অ্যাপয়েন্টমেন্ট নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।  কারণ কোমর ব্যথা খুব সাধারণ কিছু মনে করলেও ইতিহাসে দেখা গেছে মানুষ তার জীবনে একটি বিষয় নিয়ে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তি পোষণ করেন, আর সেটি হলো কোমর ব্যথা। একজন ডাক্তার আপনার ব্যথার সঠিক কারণ নির্ণয় করে এবং আপনাকে সঠিক চিকিৎসা দিতে পারেন।

কোমর ব্যথার চিকিৎসায় সাধারণত ব্যথানাশক ওষুধ, ফিজিওথেরাপি এবং সঠিক ব্যায়াম অন্তর্ভুক্ত থাকে। কিছু ক্ষেত্রে, অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হতে পারে। তবে একজন ভালো ডাক্তারি কেবল আপনার চিকিৎসা করলে আপনি সুস্থ হতে পারেন। 

আপনি চাইলে দেশসেরা ডাক্তারের একটি ছোট্টো অ্যাপয়েন্টমেন্টএর মাধ্যমে ফোন অথবা সরাসরি কথা বলে আপনার চিকিৎসা নিতে পারেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন!

এবার আশা যাক কিভাবে বিনা চিকিৎসায় ঘরুয়া উপায়ে এর থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। কোমর ব্যথা প্রতিরোধের জন্য আপনি এই ৭টি কাজ করতে পারেন। 

১] সঠিকভাবে ওজন তোলা

ওজন আমাদের শরীরের জন্য খুবই প্রয়োজনীয় একটি জিনিস। এটি যেমন কমলে আমাদের জন্য ক্ষতিকর তেমনি বাড়লেও আমাদের জন্য ক্ষতিকর। তাই সর্বদা চেষ্টা করুন ফিট থাকার।

২] সঠিকভাবে বসা

যারা চাকরিজীবী আছেন তাদের বলতে গেলে ৬ থেকে ১০ ঘন্টা অফিস চেয়ারে অথবা স্কুল,কলেজ বা ভার্সিটির চেয়ারে বসে থাকতে হয়। তাই সর্বদা চেষ্টা করুন ভালো করে বসার ও সোজা হয়ে বসার। ঘন্টাখানিক পর পর কিছুক্ষনের জন্য উঠে দাঁড়াতে। 

৩] সঠিক ভাবে ঘুমানো

বলা হয় একটি মানুষ সর্বোচ্চ ১১ দিন ২৫ ঘন্টা পর্যন্ত না ঘুমিয়ে থাকতে পারেন। কিন্তু এর বেশি হলে তিনি মারাযান। তাই সর্বদা চেষ্টা করুন সর্বনিম্ন ৭ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুমানোর। 

৪] নিয়মিত ব্যায়াম করা

ব্যায়াম যেকোনো রোগের ও স্বাস্থ ভালো রাখার মহা ওষুধ। তাই দিনে অথবা রাতে যখনি সময় পান চেষ্টা করুন ৩০ মিনিট ব্যায়াম করার। কোমর ব্যথা নিরাময়ের জন্য ব্যায়াম খুবই উপকারী।

৫] ধূমপান ও মদ্যপান এড়ানো

সবজায়গায় এটি প্রমাণিত যে ধূমপান বা অন্যন্যা মদ্যপান জিনিসগুলো মানুষদের দেহের জন্য খুবই খারাপ।  তাই এগুলা এড়িয়ে থাকার চেষ্টা করুন।

৬] কোমরে সেঁক দিন 

কোমরের যে জায়গায় ব্যথা সেখানে সেঁক দিলে যন্ত্রণা থেকে কিছুটা মুক্তি পাওয়া যাবে। তবে বেশি জোরে দিবেননা যাতে সেটা বিফল হয়ে উল্টা হয়ে যাই। 

৭] ক্যালসিয়ামযুক্ত ও পুষ্টি জাতীয় খাদ্য খাওয়া 

প্রতিদিন নিয়ম করে দুধ, ঘি, পনির, ফল, শাকসবজি, বাদাম ইত্যাদি খেলে কোমরের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। কারণ এই খাবার গুলোতে রয়েছে অনেক প্রোটিন যা আপনার কোমর ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করবে। এছাড়া হলুদ দেওয়া দুধ, লেবুর শরবত ও আদা খেতে পারেন।

কোমর ব্যথা একটি সাধারণ সমস্যা, কিন্তু এটি থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। সঠিক চিকিৎসা এবং যত্ন নিয়ে আপনি কোমর ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে পারেন এবং আপনার দৈনন্দিন জীবন স্বাভাবিকভাবে ফিরিয়ে আনতে পারেন।

টিপ: আপনি চাইলে হোমিও ওষুদের মাদ্ধমে আপনার এই কোমর ব্যথা খুব দ্রুতই সুস্থ করতে পারেন। কারন হোমিও ওষুধগুলো প্রাকৃতিক হওয়ায় এর কোনো ক্ষতিকর দিক নেই। গবেষণায় দেখা গেছে অন্যানো ওষুদের থেকে হোমিও ওষুধ ভালো কাজ করে। আমাদের দেওয়া নিচে এই ২টি হোমিও ওষুধ আপনি আপনার আসে পাশের দোকান থেকে কিনে নিয়ে সেবন করতে পারেন। আশা করি আপনি দ্রুতই সুস্থ হয়ে উঠবেন।

১) সামান্য নড়াচড়ায় ব্যথা বৃদ্ধি হয়  কিন্তু ক্রমাগত নড়াচড়ায় উপশম হয় অথবা ব্যথা চলাফেরা এবং গরম শেখ প্রয়োগে উপশম লক্ষণে এই ওষুধটি সেবন করলে আপনার কোমর ব্যথার উপশম হবে। 

ঔষধের নাম --- রাসটক্স ২০০, দিনে তিনবার করে পাঁচ ফোটা জীবহে দিয়ে খাবেন। একটানা এক মাস। এই ওষুধটি সেবন করতে হব। ওষুধটির মূল্য ৮০০৳

২) যদি আপনি দেখেন চুপচাপ বসে থাকলে ব্যথা উপশম হচ্ছে এবং যতই হাঁটাচলা করছি ব্যথা তত বৃদ্ধি পাচ্ছে এই লক্ষণে এই ওষুধটি সেবন করলে ব্যথার উপশম হবে। আপনার অবস্থা মারাত্মক হলে এই ওষুধটি সেবন করবেন।

ঔষধের নাম -- ব্রায়োনিয়া এলব ২০০, দিনে তিনবার করে পাঁচ ফোটা জীবহে দিয়ে খাবেন। একটানা এক মাস এই ওষুধটি সেবন করতে হব। ওষুধটির মূল্য ৮০০৳

ঝামেলাহীন সারা বাংলাদেশে এই ওষুধগুলো কম দামে হোম ডেলিভারি নিতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন!

সুস্থ থাকবেন ভালো থাকবেন সুবহানাল্লাহ হোমিও ক্লিনিকের সঙ্গে থাকবেন। আবার দেখা হবে পরবর্তী কোনো রোগ থেকে মুক্তির আলাপ আলোচনা নিয়ে!

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url